বেগুনী – জনপ্রিয় ইফতার অনুষঙ্গ

Print Friendly
পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতার বাজারে বেগুনী

পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতার বাজারে বেগুনী, পেয়াজুসহ নানা রকম ইফতার সামগ্রী (ছবি উইকিপিডিয়া)

প্রতিদিনের ইফতারীতে পেয়াজু, ছোলাভাজার পাশাপাশি বেগুনীও থাকা চাইই। তবে সারাদিন রোজা রেখে বেশি ভাজা-পোড়া খাবার যতটা সম্ভব বর্জন করাই ভাল। তবুও আজ ইফতারের এই জনপ্রিয় আইটেমের রেসিপি আপনাদের জন্য -উপকরণলম্বা বেগুন – অর্ধেকটা(পাতলা করে কাটলে প্রায় ১৫ টার মত বেগুনী হবে)
ছোলার ডালের বেসন – ১ কাপ
ময়দা – ১ টেবিল চামচ
ধনে গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
জিরা বাটা – ১/৩ চা চামচ
আদা বাটা – ১/২ চা চামচ
রসুন বাটা – ১/২ চা চামচ
বেকিং পাউডার – ১/৪ চা চামচ
কর্ণ ফ্লাওয়ার – ১/২ চা চামচ
মরিচ গুঁড়া – ১/২ চা চামচ
হলুদ গুঁড়া -১/২ চা চামচ
লবণ – স্বাদমতো
চিনি সামান্য
পানি – পরিমানমতো, বেসনের পেষ্ট মাখা-মাখা হবে
ডিম – ১ টা (ফেটানো হলে ভাল)
তেল – ভাজার জন্য পরিমানমতোপ্রস্তুত প্রণালী

বেগুনী তৈরীর অন্তত ১ ঘন্টা আগেই বেসনের মিশ্রণ তৈরী করে নিতে হবে। তাই শুরুতেই বাটিতে বেসন নিয়ে তার মধ্যে বেগুন, পানি, ডিম ও তেল বাদে উপরের সব উপকরণ ভালভাবে মিশিয়ে নিন। এবার পরিমাণমতো পানি দিয়ে এমনভাবে মিশিয়ে নিন যাতে মিশ্রণটা থকথকে হয়। এখন এই মিশ্রণে ডিমটা ভেঙ্গে দিন (অথবা আগে ফেটানো ডিমটা দিন)। ভালভাবে মিশিয়ে এই মিশ্রণ ১ ঘন্টা রেখে দিন।
১ ঘন্টা পর এবার বেগুনী তৈরির জন্য বেগুনগুলো ধুয়ে লম্বা-লম্বি ভাবে পাতলা করে কেটে সামান্য লবণ, চিনি, হলুদ আর মরিচের গুঁড়া মেখে ১০-১৫ মিনিট রেখে দিন। এতে বেগুনীর বেগুনটা নরম হবে আর ক্ষেতে ভাল লাগবে। বেগুন পাতলা করে না কাটলে ১৫ টা বেগুনী নাও হতে পারে।এবার বেগুনী ভাজার জন্য কড়াইতে তেল গরম করে পাতলা করে কেটে রাখা বেগুন বেসনের পেষ্টে  ভালভাবে চুবিয়ে ডুবো তেলে বাদামী করে ভেজে টিস্যু পেপারে ছড়িয়ে রাখুন। বেগুনী খুব তেল চপচপে হয়ে ওঠে,  টিস্যু পেপার তেল কিছুটা চুষে নেবে। তো হয়ে গেল ইফতারিতে অবশ্যই থাকা চাই এমন আইটেম বেগুনী।টিপসঃ 
বেগুনের দাম বাড়তি (বেশি) থাকায় এখন বেগুনের বদলে পেপে কিংবা আলু ব্যবহার করেন অনেকেই, বিশেষ করে বাণিজ্যিক ভাবে। সেক্ষেত্রে বেগুনের জায়গায় আলু অথবা পেপে দিলেই চলবে। তবে তাতে বেগুনীর স্বাদ পাওয়া যাবেনা। বেগুনীতে বেসনের মিশ্রণের প্রলেপটা যেন খুব পুরু না হয়, তাতে বেগুনীর স্বাদ থাকেনা। আর ভাজার সময় খেয়াল রাখবেন চুলার আঁচ যেন কমানো থাকে তাতে তেল পুড়ে যাবেনা, আর বেগুনীগুলো ভালভাবে ভাজা হবে, ভাজা বাদামী হবে কিন্তু পুড়বে না।সুমি, চট্টগ্রাম, ১৫-০৮-২০১০
পরবর্তী প্রকাশনাঃ মুনিমের পেয়াজু বানানোর অভিজ্ঞতা এবং টিপস
ইমেইলে নতুন রেসিপি পেতে সাবস্ক্রাইব করুন…আপডেটঃ পোস্টের ছবিটি মুছে দেয়া হয়েছে ছবির স্বত্তাধিকারী আপত্তি করেছেন বলে। পরে ছবি দিয়ে পোস্টটি আপডেট করে দেয়া হবে।  

পোষ্টটি লিখেছেন: ভূলু | ভূলু'স রেসিপি

ভূলু | ভূলু'স রেসিপি এই ব্লগে 99 টি পোষ্ট লিখেছেন .

আমি 'ফজলুর নূর ভূলু'। আমার রান্নাঘরের অরিজিনাল সব রেসিপি নিয়েই আমার এই ব্লগ - "ভূলু'স রেসিপি"। এই রেসিপি ব্লগের মাধ্যমে আমি দেশি খাবার আর তার অতুলনীয় স্বাদের বৈচিত্র তুলে ধরতে চাই। সাথে আমাদের আঞ্চলিক এবং ঐতিহ্যবাহী রান্নাগুলোও থাকবে। ভবিষ্যতে এইসব রেসিপি আর ব্লগের গল্পগাঁথা নিয়ে একটি বই প্রকাশের ইচ্ছে আছে।

happy wheels

প্রিয় খাদ্যরসিক ভাই ও বোনেরা, নতুন রেসিপি পেতে নীচের বক্সে আপনার ইমেইল ঠিকানা দিয়ে সাবস্ক্রাইব করুন। ব্লগে প্রকাশ হওয়ার সাথে সাথেই পৌঁছে যাবে আপনার ইমেইলে।

8 thoughts on “বেগুনী – জনপ্রিয় ইফতার অনুষঙ্গ

  1. sharmila

    ei je bhai … photo ta je amar … amar blog er copyright sign o royeche otar opor … ekbar jiggesh korbe toh.

  2. ভূলু (ভূলু'স রেসিপি)

    আমি পারতপক্ষে অন্যের ছবি আমার ব্লগে ব্যবহার করিনা। তবুও যদি কখনো করতেই হয় তাহলে ছবিটি যে সাইট থেকে নেয়া হয়েছে সেই সাইটকে ক্রেডিট দিয়েই ব্লগে পাবলিশ করা হয়। এই পোস্টের ছবিটিও দেখুন 'ছবি ক্রেডিট' লিখে তা লিঙ্ক করে দেয়া হয়েছে। তবে ছবিটি আমি নিয়েছি http://khauwardol.blogspot.com এই সাইট থেকে, কিন্তু ছবির উপরে যে আপনার ব্লগের কপিরাইট সাইন রয়েছে তা অস্পষ্ট, ভাল করে দেখেও বোঝা যায়না। আপনার ছবির উপর কপিরাইট সাইন স্পষ্ট থাকলে অবশ্যই আপনার ব্লগকেই ক্রেডিট দিতাম। এখন আপনার অনুমতি চাইছি, যদি অনুমতি দেন তাহলে আপনার ব্লগকে ক্রেডিট দিয়ে ছবিটি পাবলিশ করতে চাই। ছবিটি ভাল হয়েছে, আর আপনার রেসিপি নিয়ে ইংরেজী ব্লগটিও ভাল হয়েছে।

    ধন্যবাদ আমার সাইটটি ভিজিট করার জন্য।

  3. Sharmila

    copyright sign ta je ache shetai ki jothesto noye … puro chobi ta te ki sign diye bhore dite hobe?
    that blog has also taken the snap without my permission.
    and no you may not use it.
    nijer reciper photo nijei click kore post korun na … dekhben bhalo lagbe.

  4. ভূলু (ভূলু'স রেসিপি)

    আপনার পরামর্শের জন্য ধন্যবাদ। ছবির উপর কপিরাইট সাইনটা অস্পষ্ট ছিল, নইলে ক্রেডিটটা মূল স্বত্তাধিকারীকেই দেয়া হত। এজন্যে ভুল স্বীকার করছি। এখন আপনি আপত্তি করায় ছবিটা মুছে দিয়েছি।

    ধন্যবাদ, ভাল থাকবেন।

  5. Sharmila

    chobita tule newar jonne dhonnobad. kintu ota ekhono apnar onno blog e ache … shekhan theke o tule nite bhulben na.

  6. ভূলু (ভূলু'স রেসিপি)

    প্রিয় শর্মিলী,

    অন্য ব্লগগুলো থেকেও আপনার ছবিটি তুলে নেয়া হয়েছে। সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।

    ও আপনার ইংরেজী ব্লগের রেসিপি গুলো ভাল হয়েছে, আমি মাঝে মাঝে আপনার রেসিপিতে রান্নার চেষ্টা করব।

    ভাল থাকবেন।

  7. Milky, Dhaka

    Thanks for your dry fish recipe. The recipe of lattia fish is interesting.I'll try it.Thanks again.

    • ভূলু (ভূলু'স রেসিপি) Post author

      শুটকি আর সামুদ্রিক মাছ চট্টগ্রামে আমাদের কাছে খুবই প্রিয়।

      লইট্ট্যা মাছের আরো মজার সব রান্না করি আমরা চট্টগ্রামে। এই ব্লগে তা তুলে ধরার ইচ্ছে রইল।

      ধন্যবাদ ভাই আপনার কথার জন্য।

Comments are closed.

Facebook

Get the Facebook Likebox Slider Pro for WordPress